মিজোরামের আইজল “সিটি অফ ফ্লাওয়ারস”

মিজোরাম পৌঁছানোর উপায় এবং বিদেশীদের জন্য FRO:-

মিজোরাম আপনি গুয়াহাটি থেকেও যেতে পারেন আবার জোয়াই হয়ে শিলচর দিয়েও যেতে পারেন।শিলং থেকে গেলে বেশী রাস্তা ঘোরা হবে।আপনি ডাউকি থেকে জোয়াই পর্যন্ত রিজার্ভ ট্যাক্সিতে যেতে পারেন অথবা ট্যাক্সি শেয়ার করেও যেতে পারেন।ডাউকি থেকে শিলচর ১৯১ কিমি।জোয়াই থেকে শিলচর পর্যন্ত টাটা সুমোতে যেতে পারেন।ভাড়া জনপ্রতি ৩০০-৩৫০ রুপি।শিলচর থেকে আইজল পর্যন্ত টাটা সুমোতে যেতে পারেন।শিলচর থেকে আইজল ১৭৩ কিমি।ভাড়া জনপ্রতি ৪৫০ রুপি।আবার শিলচর এবং গুয়াহাটি থেকে ফ্লাইটেও যেতে পারেন আইজল পর্যন্ত।ডাউকি থেকে বাই রোডে একদিনে আইজল পৌঁছানো সম্ভব নয়।সেক্ষেত্রে আপনাকে শিলচর একরাত থাকতে হবে।Image may contain: people standing, mountain, sky, outdoor and nature

বিদেশীদের জন্য মিজোরাম ঢোকার নিয়ম হচ্ছে মিজোরাম ঢোকার আগে একটা চেক পোস্ট আছে।ঐ চেক পোস্টে নাম এন্ট্রি করে নেওয়া।আপনি যদি ফরেনার হন তাহলে FRO এন্ট্রি করে নিতে হবে আর ইন্ডিয়ান হলে ILP (Inner Line Permit)।ফরেনারদের নাম এন্ট্রির প্রসেস খুবই সোজা।পাসপোর্ট দিলেই ওরা এন্ট্রি করে নিবে।কিন্তু ইন্ডিয়ান নাগরিকদের ILP অপেক্ষাকৃত ঝামেলার।IPL করতে হলে এক করি ছবি জমা দিতে হবে।ঐ ছবিসহ তারা একটা অনুমতির রশিদ প্রদান করবে।আর ফরেনারদের জন্য শুধু নাম এন্ট্রি করলেই হবে।

আইজল পৌঁছে আপনি পুরো মিজোরাম ঘোরার জন্য একটা গাড়ী ভাড়া করে নিলে সবচেয়ে ভালো হবে।খরচও কম হবে।গাড়ী ৫-৬ দিনের জন্য ভাড়া করলে সব জায়গা ঘোরা সম্ভব।গাড়ী প্রতি কিলোমিটার ১৯-২০ রুপি আর ড্রাইভারের জন্য দিনপ্রতি ৮০০ টাকা।আমি এই রেটে ঠিক করেছিলাম।

আইজল থেকে রেইক পিক ৩০ কিমি।আর রেইক পিক থেকে সেরলুই নদী ৬ কিমি।আর সেরলুই নদী থেকে ফালকাওন এথেনিক ভিলেজ ১৬ কিমি।আর ফালকাওন এথেনিক ভিলেজ থেকে মুইফাং ৫২ কিমি।প্রথমদিন আপনি প্রথমে রেইক পিক ট্রেক করে সেরলুই নদী হয়ে ফালকাওন এথেনিক ভিলেজ দেখে মুইফাং গিয়ে রাতে থাকবেন।মুইফাং রাতে থাকার জন্য সরকারী গেস্ট হাউজ আছে।ভাড়া রুপপ্রতি ৩০০ রুপি।একরুমে ২ জন থাকা যায়।

২য় দিন মুইফাং এর কমলালেবুর বাগান দেখে চলে যাবেন ভেন্টাং জলপ্রপাত (Ventwang Waterfall) মিজোরামের সবচেয়ে বড়ো জলপ্রপাত।ভেন্টাং জলপ্রপাতের পাশেই পাবেন তুইরিহিয়ান জলপ্রপাত(Tuirihian Waterfall)।এরপর চলে যান চাম্ফাই।ঐ দিনই চম্ফাই পৌঁছানো সম্ভব নয়।রাস্তায় সাইতুলে রাত কাটাতে পারেন।সাইতুলে সরকারী রেস্ট হাউজ আছে।

৩য় দিন গিনেজ বুকে নাম ওঠা বিশ্বের সবচেয়ে বড় পরিবার জিয়নস পরিবারের সাথে সময় কাটিয়ে চাম্ফাই থেকে ২৭ কিমি দূরে Zokhawthar যাবেন।

Zokhawthar Boarder থেকে অনুমতি স্লিপ দিয়ে চলে যান মায়ানমারের রিখাদ্বার(Rihkhadwar) গ্রামে।সেখান থেকে মায়ানমারের রি ডিল (Rhi Dil) লেক।রি ডিল লেক খুবই সুন্দর।

Image may contain: cloud, sky, grass, outdoor and nature৪র্থ দিন চাম্ফাই থেকে ফেরার পথে পড়বে সাইতুল (Saitul)।সাইতুল থেকে ৭ কিমি দূরে মিজোরামের আরেকটি হ্রদ তামডিল (Tamdil)।সাইতুলে মিজোরাম পর্যটন বিভাগের কটেজ আছে।রাতে সাইতুল থাকতে পারবেন।সাইতুল থেকে আইজল যেতে ৩ ঘন্টার মতো লাগে।

৫ম দিন ফাংগুই ন্যাশনাল পার্ক ঘুরে দেখতে পারেন।

মিজোরামে যা যা দেখবেন:-

১)রেইক পিক (Reiek Peak):-

আইজল থেকে রেইক পিক ৩০ কিমি।রেইকের উচ্চতা ৫,০০০ ফিটের কিছু বেশী।রেইক পিক যাওয়ার সময় রাস্তায় মিজোরামের প্রধান নদী Tiawng দেখে নিন।রেইক পিক যাওয়ার রাস্তাটায় সবুজের গালিচায় মোড়ানো।অদ্ভুত সুন্দর রাস্তার চারিপাশ।

২)সেরলুই নদী(Serlui River):-

রেইক পিক থেকে দূরত্ব ৬ কিমি।

৩)ফালকাওন এথেনিক ভিলেজ (Falkawn Ethnic Villege):-

ফালকাওন এথেনিক ভিলেজ মিজোদের পূর্ব পুরুষদের স্মৃতি বহন করে চলেছে।ফালকাওন এথেনিক ভিলেজে গেলে মিজোদের পূর্ব পুরুষদের জীবনযাপন আপনার চোখের সামনে ভেসে উঠবে।

৪)মুইফাং (Hmuifang):-

মুইফাং মিজোরামের জনপ্রিয় পার্বত্য শহর।রেইক থেকে আইজল হয়ে যেতে হবে মুইফাং।আইজল শহর থেকে মুইফাং এর দূরত্ব ৫০ কিমি।মুইফাং এর পুরোটাই পাহাড় দিয়ে ঘেরা।অনেক দূরে দূরে কিছু জনবসতি।মুইফাং এ প্রচুর কমলার বাগান আছে।মুইফাং লোকজন খুবই ভালো।মুইফাং রাতে থাকার সরকারী রেস্ট হাউজ আছে।চমৎকার পরিবেশ।মুইফাং কাটানো রাতের কথা সারাজীবন মনে থাকবে।

৫)থানজোয়াল (Thanzowal):-

থানজোয়াল মিজো বয়ন শিল্প কেন্দ্র।ঘরে ঘরে বোনা তাঁতে বোনা হচ্ছে উজ্জ্বল রংয়ের মিজো পোশাক,চাদর আর ব্যাগ।

৬)ভেন্টাং জলপ্রপাত (Ventwang Waterfall):-

থানজোয়াল থেকে ৬ কিমি মিজোরামের সবচেয়ে বড় জলপ্রপাত ভেন্টাং।

৭)তুইরিহিয়ান জলপ্রপাত (Tuirihian Waterfall):-

ভেন্টাং জলপ্রপাতের ঠিক পাশেই তুইরিহিয়ান জলপ্রপাত।

No photo description available.

৮)চাম্ফাই (Champhai):-

চাম্ফাই শহর জেলা সদর।মায়ানমারের পাহাড় দিয়ে ঘেরা উপত্যকা।মিজোরামের সবচেয়ে বেশী সমতল ভূমি চাম্ফাইতে।পুরো মিজোরামের চালের জোগান দিয়ে থাকে চাম্ফাই।চাম্ফাই এর আঙ্গুর বিখ্যাত।

৯)Zokhawthar villege:-

চাম্ফাই থেকে থেকে ২৭ কিমি দূরে মিজোরামের সীমান্ত গ্রাম Zokhawthar গ্রাম।

১০)রি ডিল লেক (Rhi Dil Lake):-

Zokhawthar Boarder থেকে লিখিত অনুমতি নিয়ে যাওয়া যায় মায়ানমারের গ্রাম রিখাদ্বার (Rihkhawar) গ্রাম।মাঝে বয়ে চলেছে নদী।নদীর একপাশে মিজোরাম।আরেক পাশে মায়ানমার।Zokhawthar Boarder থেকে ৩ কিমি দূরে।ঐ গ্রামেই রি ডিল লেক।অসম্ভব সুন্দর রি ডিল লেক।

১১)তামডিল লেক (Tamdil Lake):-

সাইতুল থেকে ৭ কিমি তামডিল লেক।

১২)জিয়নস ফ্যামিলি (Zions Family):-

গিনেজ বুকে নাম লেখানো বিশ্বের সবচেয়ে বড় পরিবার।ভদ্রলোক ৩৯টি বিয়ে করেছেন।ভদ্রলোকের ৮৯টি ছেলে-মেয়ে আর ৬৫টি নাতি-নাতনি।সবচেয়ে অবাক করা বিষয় হচ্ছে সবাই এক ছাদের নিচে একসাথে থাকে।জিয়নস পরিবারকে দেখা অদ্ভুত এক ব্যাপার।সবার রান্না একসাথে হচ্ছে।সবাই একসাথে থাকছে।

১৩)ফাংগুই ন্যাশনাল পার্ক (Phawngpui National Park):-

ফাংগুই ন্যাশনাল পার্ক মুইফাং থেকে ২৬১ কিমি দূরে।

১৪)আইজল:-

আইজল মিজোরামের রাজধানী।গাড়ীর হর্ন মুক্ত শহর।আইজলকে সিটি অফ ফ্লাওয়ারস বল্লে খুব একটা ভুল হবে না।প্রতিটি বাড়ীর সামনে ফুলের বাগান।অদ্ভুত সুন্দর সাজানো শহর আইজল।

লিখেছেন Dip Biswas

দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।

সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।

73026431_499309080801214_5121852103681114112_n
74615407_604237516988756_3060769724364226560_n

We will be happy to hear your thoughts

Leave a reply

Tourplacebd.com