ভারতে ঘুরতে যেতে চাইলে যা করবেন

এক দেশে একই সময়ে শীত, গ্রীষ্ম, বর্ষা। উত্তরে যখন বরফ পড়ে; দক্ষিণে তখন গরম। একপাশে দীর্ঘ সমুদ্র সৈকত। অন্যপাশে পাহাড় আর মরুভূমি। পাশের দেশ ভারতের দৃশ্য এমনই।

সময় পেলে অনেকেই ঘুরে আসতে পারেন ভারত থেকে। কিভাবে যাবেন? কোথায় যাবেন? কী দেখবেন? এসব চিন্তায় আর যাওয়া হয়ে ওঠে না। তাদের জন্যই এই লেখা-

পাসপোর্ট চাই
বিদেশে যেতে চাইলে প্রথমে প্রয়োজন হয় পাসপোর্ট। আপনার কাছের আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস থেকে এখন খুব সহজেই পাসপোর্ট করতে পারেন।

ডলার এনডোর্সমেন্ট
দেশের বাইরে যেতে হলে সঙ্গে নিতে হবে আন্তর্জাতিক মুদ্রা বা মার্কিন ডলার। ভারতে যেতে চাইলে অবশ্যই আপনার পাসপোর্টে ২০০ ডলার এনডোর্স করতে হবে। যে কোন ব্যাংক থেকে ২০০ মার্কিন ডলার সমপরিমাণ টাকার বিনিময়ে ও নির্ধারিত ফি দিয়ে পাসপোর্ট ডলার এনডোর্স করতে পারেন।

যেভাবে ভিসা করবেন
ভারতীয় ভিসার জন্য অনলাইনে এই ওয়েবসাইট থেকে আবেদন করতে হবে। প্রয়োজনীয় তথ্য ও ছবি দিয়ে আবেদনপত্র পূরণ করুন। সঠিকভাবে পূরণ করার পর ফরমের পিডিএফ কপি ডাউনলোড করে প্রিন্ট করুন। এবার ফরমের উপরে নির্ধারিত জায়গায় ২/২ ইঞ্চি সাইজের ছবি আঠা দিয়ে যুক্ত করুন। ছবি অবশ্যই সবশেষ ৩ মাসের মধ্যে তোলা হতে হবে।

এরপর এই ওয়েবসাইটে গিয়ে ভিসা ফি পরিশোধ করুন। ফরম ও ভিসা ফি পরিশোধের প্রিন্ট কপি, জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি, পেশার সার্টিফিকেট বা এনওসি, বর্তমান ঠিকানার যে কোন বিলের ফটোকপি, পাসপোর্টে ডলার এনডোর্সমেন্টের কপি ও পাসপোর্ট আপনার কাছের ভারতীয় ভিসার সেন্টারে গিয়ে জমা দিন।

জমার দেওয়ার পর ভিসা সেন্টার থেকে স্লিপ বুঝে নিন। যেখানে আপনার পাসপোর্ট ডেলিভারির সময় উল্লেখ থাকবে। এরপর নির্ধারিত দিনে গিয়ে পাসপোর্ট সংগ্রহ করুন। ভিসা আবেদনের জন্য পাসপোর্টে ডলার এনডোর্সমেন্টের পরিবর্তে আপনার সবশেষ ৬ মাসের ব্যাংকিং লেনদেনের বিবরণও দিতে পারেন।

ভারতে গেলে আগ্রার তাজমহল দেখতে ভুলবেন না। গতিমান এক্সপ্রেসে সহজেই দিল্লি থেকে আগ্রার তাজমহল ঘুরে আসতে পারেন।

ট্রাভেল প্ল্যান
যে কোন কাজেই প্রয়োজন সঠিক পরিকল্পনা। তাই ঘুরতে যাওয়ার আগে ট্রাভেল প্ল্যান করে ফেলুন। কোথায় কোথায় ঘুরবেন? কিভাবে যাবেন? কোথায় থাকবেন? সঙ্গে কী নেবেন? এমন সবকিছু লিখে ফেলুন। ঘোরার সময় পরিকল্পনার ব্যতিক্রম হতেই পারে। কিন্তু আগে থেকেই যদি সবকিছু পরিকল্পনায় থাকে তবে আপনার ভ্রমণ হবে ঝামেলাহীন ও স্বাচ্ছন্দ্যময়।

কলকাতায় যাবেন কফি হাউজে যাবেন না তা কি করে হয়।

হোটেল বুকিং
ইন্টারনেটের এই সময়ে ঘরে বসেই দিতে পারেন হোটেল বুকিং। কোন ধরনের চার্জ বা অগ্রিম টাকা পরিশোধ না করে বাংলাদেশ থেকে ভারতের অনেক জায়গার হোটেল বুকিং দেওয়া যায়। হোটেল বুকিংয়ের জন্য জনপ্রিয় ওয়েবসাইটগুলো হচ্ছে- www.agoda.com, www.oyorooms.com, www.booking.com, www.makemytrip.com, www.trivago.in, www.yatra.com প্রভৃতি।

এয়ার টিকিট
এয়ারে ভারতে যাওয়ার জন্য দেশি-বিদেশি অনেকগুলো এয়ারলাইন্স রয়েছে। আপনার যাওয়ার দিন থেকে যত আগে এয়ার টিকিট সংগ্রহ করবেন টিকিটের দাম তত কম লাগবে। যে কোন ট্রাভেল এজেন্সি বা অনলাইন থেকে এয়ার টিকিট সংগ্রহ করতে পারেন।

এয়ারলাইন্স অনুযায়ী ঢাকা থেকে ভারতের কলকাতায় যাওয়া আসায় গড়ে ১০ হাজার টাকা খরচ হতে পারে।

ট্রেনের টিকিট
ট্রেনে ভারত যাওয়ার জন্য ঢাকার কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে মৈত্রী ট্রেনের টিকিট সংগ্রহ করতে হবে। টিকিট সংগ্রহের সময় পাসপোর্ট ও ভিসার কপি প্রয়োজন হবে।

মৈত্রী ট্রেন ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট স্টেশন থেকে সকাল আটটা পনেরো মিনিটে ভারতের কলকাতার উদ্দেশে ছাড়ে। এই ট্রেনে এসি সিটে ভ্রমণে লাগবে ৩৪০০ টাকা এবং এসি চেয়ারে লাগবে ২৫০০ টাকা।

এছাড়া খুলনা থেকে বন্ধন এক্সপ্রেস ট্রেনে ভারত যাওয়া যায়। এই ট্রেনে এসি সিট ২০০০ এবং এসি চেয়ার ১৫০০ টাকা। খুলনা রেলওয়ে স্টেশন থেকে দুপুর ১টা ৩০ মিনিটে বন্ধন এক্সপ্রেস ভারতের কলকাতার উদ্দেশে ছেড়ে যায়।

দিল্লিতে যাবেন? কি দেখবেন?

বাস টিকিট
ঢাকার কমলাপুর, আরামবাগ, ফকিরাপুল, কল্যাণপুর, কলাবাগান বাসস্ট্যান্ড থেকে ভারতে কলকাতা, শিলং, শিলিগুড়িতে সরাসরি যাওয়ার বাস টিকিট পাওয়া যায়। এছাড়া ঢাকা থেকে আপনার পছন্দের ভারতীয় সীমান্ত পর্যন্ত বাসে যেতে পারেন।

ট্রাভেল ট্যাক্স
ভারত যেতে চাইলে দিতে হবে ৫০০ টাকা ভ্রমণ কর বা ট্রাভেল ট্যাক্স। ঢাকার মতিঝিলে সোনালী ব্যাংকের লোকাল ব্রাঞ্চসহ জেলা শহরের সোনালী ব্যাংকে ট্রাভেল ট্যাক্স দেওয়া যায়। এছাড়াও বাংলাদেশের যে কোন ইমিগ্রেশনের কাস্টমসে ট্রাভেল ট্যাক্স দেওয়া যায়। ঝামেলা ও ভিড় এড়াতে ভ্রমণের আগেই ট্রাভেল ট্যাক্স পরিশোধ করে রশিদ সংরক্ষণ করুন। কারণ বাংলাদেশ ও ভারতে ইমিগ্রেশনে এই রশিদ দেখাতে হবে। তবে এয়ার বা ট্রেনে যেতে চাইলে টিকিটের মূল্যের সঙ্গেই ট্রাভেল ট্যাক্স যুক্ত থাকে।

ইমিগ্রেশন ফরম
বাংলাদেশ ছাড়ার সময় ইমিগ্রেশনে যাওয়ার আগে পূরণ করতে হবে ইমিগ্রেশন ফরম। যেখানে আপনার ব্যক্তিগত ও পাসপোর্টের তথ্য, ভ্রমণের উদ্দেশ্যসহ কিছু তথ্য দিতে হবে। এছাড়া ভারতের ইমিগ্রেশনেও সে দেশের ইমিগ্রেশন ফরম পূরণ করে জমা দিতে হবে।

মানি এক্সচেঞ্জ
ভারতের যে কোন মানি এক্সচেঞ্জ থেকে আপনার সঙ্গে থাকা মার্কিন ডলারের বিনিময়ে রুপি সংগ্রহ করতে পারেন।

দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।

সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।

73026431_499309080801214_5121852103681114112_n
74615407_604237516988756_3060769724364226560_n

Tourplacebd.com