বোটানিক্যাল গার্ডেন – ময়মনসিংহ

প্রকৃতিকন্যা খ্যাত বাংলদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদের তীরে প্রতিষ্ঠিত উদ্ভিদরাজির বিরল সংগ্রহশালা বোটানিক্যাল গার্ডেন(Botanical Garden)। বিলুপ্ত ও প্রায় বিলুপ্ত উদ্ভিদরাজিকে মানুষের কাছে তুলে ধরতে ১৯৬৩ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফসল উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগ এবং তৎকালীন উপাচার্য অধ্যাপক ড. ওসমান গণির হাত ধরে ২৪ একর জমি নিয়ে গার্ডেনটি যাত্রা শুরু করে।

বাকৃবির ক্যাম্পাসে অসংখ্য দর্শনীয় স্থানের মধ্যে অন্যতম বোটানিক্যাল গার্ডেন। প্রতিষ্ঠার শুরুতে গার্ডেনটি আয়তনে খুবই অল্প থাকলেও বর্তমানে গার্ডেনটির আয়তন প্রায় ২৫ একর। আর এ গার্ডেনটি শুধু যে বিশ্ববিদ্যালয়ের সৌন্দর্য এনে দিয়েছে তাই নয় এর মাধ্যমে পুরো ময়মনসিংহ শহরে সৃষ্টি হয়েছে নতুন মাত্রা।

দেশের মূল্যবান উদ্ভিদ প্রজাতি বিশেষ করে বিরল প্রজাতির হার্বজাতীয় ঔষধি ও সুগন্ধি জাতীয় উদ্ভিদ সংরক্ষণের জন্য রয়েছে পট হাউজ নামে বিশেষ সংরক্ষণাগার। ঔষধি জোনে রয়েছে ৪৮ প্রজাতির উদ্ভিদ। এগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- অশ্বগন্ধা, ব্রাউনিয়া, কর্পুর, আগর, অঞ্জন, অ্যানথেরিয়াম ইত্যাদি। ক্যাকটাস ও অন্যান্য সংবেদনশীল উদ্ভিদ সংরক্ষণের জন্য দুটি বড় গ্রিন হাউজ রয়েছে গার্ডেনটিতে।

বিভিন্ন ধরনের ফুলের মধ্যে রয়েছে-জেসিয়া, সিলভিয়া, হৈমন্তি, ক্যামেলিয়া, আফ্রিকান টিউলিপ, ট্যাবেবুইয়া, রাইবেলী, অ্যাস্টার, কসমস, ডায়ান্থাস, রঙ্গণ ইত্যাদি। ফলের মধ্যে রয়েছে- স্টার আপেল, আমেরিকান পেয়ারা, কমলা, আঙুর, প্যাসান ফল এবং বিভিন্ন ধরনের মৌসুমি ফল।

Related image

এছাড়া বিভিন্ন ধরনের বিলুপ্তপ্রায় উদ্ভিদের মধ্যে রয়েছে- ডেফল, নাগলিঙ্গম, কালাবাস, কারিলিফ, ফলসা, মনহোটা, পেয়ালা, মাক্কি, বনডুবি, লোহাকাট, উদাল, পানবিলাস, অর্জুন, বয়রা, হরতকি, কাটাসিংড়া, টিকমা, প্যাপিরাস, রাইবেলী, স্ট্যাভিয়া, হিং, পেল্টোফোরাম ইত্যাদি।

বছরের প্রায় সময়ই বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে প্রায় চার লাখেরও বেশি দর্শনার্থী গার্ডেনটি পরিদর্শনে এসে মুগ্ধ হয়। গার্ডেনের সৌন্দর্য বর্ধন এবং দর্শনার্থীদের অধিক বিনোদনের জন্য বন্য পশু-পাখির প্রতিকৃতি নির্মাণ করে বিভিন্ন দর্শণীয় পয়েন্টে স্থাপন করা হয়েছে। প্রতিকৃতির মধ্যে দ্বীপ জোনে দুটি রাজহাঁস ও দুটি সারস (বড় সাদা বক), গেইটের সম্মুখে পাইন গাছের গোড়ায় পশুর রাজা সিংহ, অরকোরিয়া গাছের গোড়ায় শান্ত ভদ্র প্রাণী হরিণ, বাগানের ভেতরের প্রবেশ দ্বারের প্রথম আর্চের সামনে হিংস্র রয়েল বেঙ্গল টাইগার, পাশেই অন্য আর্চের উপর ছানাসহ বাঘের মাসী বিড়াল এবং গেইট সংলগ্ন জোনের কেন্দ্র বিন্দুতে সকল দর্শাণার্থীদের শুভ কামনায় শাবকসহ প্রার্থনারত অবস্থায় দন্ডায়মান রয়েছে অস্ট্রেলিয়া মহাদেশের জাতীয় পশু ক্যাঙ্গারু।

বোটানিক্যাল গার্ডেনে দর্শার্থীদের বিশ্রাম ও আলাপ-চারিতা সম্পাদনের জন্য রয়েছে বিশ্রাম বেঞ্চ। গার্ডেনের এক প্রান্ত হতে অন্য প্রান্ত পর্যন্ত সৌন্দর্য্য উপভোগের ক্ষেত্রে দর্শনার্থীরা ক্লান্তি সেরে নেয়ার জন্য অথবা আলাপ-চারিতা সেরে নেওয়ার জন্য বিশ্রাম বেঞ্চের সান্নিধ্যে যায়। বিশ্রাম বেঞ্চগুলো নদীর পাড় ঘেষে হওয়ায় ব্রহ্মপুত্র নদের বুকে ভেসে যাওয়া পালতোলা অথবা ইঞ্জিন চালিত নৌকায় আরোহী হাজারো শ্রমজীবী মানুষ ও নাইওরীদের দর্শন মেলে।

গার্ডেনটি প্রতিষ্ঠার পর থেকে এটি বিশ্ববিদ্যালয়কে আর্থিকভাবে সাহায্য পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ের উচ্চ শিক্ষা, গবেষণা ও সম্প্রসারণ কার্যক্রম, স্নাতক পর্যায়ে বিভিন্ন অনুষদের শিক্ষার্থীদের উদ্ভিদ জগৎ সম্পর্কে ব্যবহারিক জ্ঞান অর্জন এবং এম.এস ও পিএইচডি শিক্ষার্থীদের গবেষণা কার্যক্রমে বিভিন্নভাবে সহায়তা প্রদান করে আসছে। প্রধান গেইট শিক্ষার্থীসহ জনসাধারণের প্রবেশ ও বাহির হওয়ার জন্য সপ্তাহে ৭ দিনই সকাল ৯ টা হতে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত খোলা থাকে। নান্দনিক ডিজাইন ও আলোকসজ্জার মূল গেইটটি যেন দর্শনার্থীদের স্বাগত জানাতে সদা প্রস্তুত থাকে।

বোটানিক্যাল গার্ডেনের সহকারী কিউরেটর মো. সাইফুল হক মাসুম জানান, মোট ৫৫৮টি গাছের প্রজাতি নিয়ে প্রজাতির দিক থেকে দেশে একনম্বর বোটানিক্যাল গার্ডেন এটি। বোটানিক্যাল গার্ডেনের বিভিন্ন জোনে ভাগ করা হয়েছে, যাতে দর্শনার্থীরা হরেক রকম উদ্ভিদরাজির সঙ্গে পরিচিত হতে পারেন।

সব মিলিয়ে অনিন্দ্য সুন্দর আর সমৃদ্ধ উদ্ভিদরাজির বোটানিক্যাল গার্ডেনকে নিয়ে গর্ব করে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এ বোটানিক্যাল গার্ডেনটি দিনের পর দিন মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে তার সৌন্দর্য দর্শনার্থীদের মাঝে বিলিয়ে যাবে এমনটিই প্রত্যাশা সকলের।

কিভাবে যাবেন

ময়মনসিংহ জেলা সদরে অবস্থিত।

দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।

সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।

73026431_499309080801214_5121852103681114112_n
74615407_604237516988756_3060769724364226560_n

Tourplacebd.com