ঐতিহ্যবাহী পুরাণ ঢাকায় একদিন

পুরাণ ঢাকা বললেই প্রথমে যা মনে আসে তাহলো এর রকমারি খাবার ইস্পেসিয়ালি কাচ্চি বিরিয়ানি ও বিভিন্ন রকমের কাবাব আর পুরাণ ঢাকার মানুষ ধর্মভীরু হবার কারণে এখানে অলিগলিতে প্রচুর মসজিদ গড়ে উঠেছে তাই ঢাকাকে মসজিদের শহরও বলা হয়ে থাকে। পুরাণ ঢাকা ঐতিহ্যগত দিক দিয়ে সমৃদ্ধ হবার পাশাপাশি এর দর্শনীয় স্থানও রয়েছে অনেক তাই দেশ বিদেশের বিভিন্ন স্থান থেকে সাকরাইন উৎসব সহ প্রায় সারাবছর ভ্রমণ প্রিয় মানুষ পুরাণ ঢাকায় পাড়ি জমায়। আমারও একদিন পুরাণ ঢাকায় ঘোরার সুযোগ হয়েছিল, তাই এখানে তুলে ধরার চেষ্টা করব।।।

Image may contain: one or more people, sky and outdoor

পুরাণ ঢাকায় একদিন…👌👌

পুরাণ ঢাকার অলিগলি আর ঘিনজি এলাকা সম্পর্কে প্রচুর শুনেছি তাই একটা প্রপার প্লান আর গুগল ম্যাপকে সঙ্গী করে সকাল ৮.৩০ দিকে বেরিয়ে পড়লাম জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্দেশ্যে,ক্যাম্পাসের এরিয়াটা মোটামুটি ঘুরে চলে গেলাম আহসান মঞ্জিলের উদ্দেশ্যে। বুড়িগঙ্গা নদীর তীরে গড়ে ওঠা এই আহসান মঞ্জিল সম্পর্কে অনেক শুনেছি আর আজ তা সরাসরি দেখার ভাগ্য জুটলো, ১৮৫৯ সালে গড়ে ওঠা এই আহসান মঞ্জিল সঠিকভাগে রক্ষণাবেক্ষনের ফলে এখনো অনেক দৃষ্টিনন্দন ও আকর্ষণীয় হয়ে আছে। তারপর চলে গেলাম আর্মেনিয়া চার্চের উদ্দেশ্যে, পারমিশন নিয়ে ঢুকে পড়লাম চার্চের ভিতরে, ঢুকতেই চোখে পড়লো আর্মেনীয়দের কবর, চার্চের চারপাশই সেসময় কবরস্থান হিসেবে ব্যবহার করা হত। ১৭৮১ সালে গড়ে তোলা এই চার্চের মূল আর্কষণ হল এর কাঠামো, এর মূল গম্বুজ থেকে শুরু করে পুরা কাঠামোটাই ছিল মনকাড়ার মত। পাশেই রয়েছে কাস্বাবটুলি বা চিনিটুকরা মসজিদ এটি পিকে ঘোস রোডে পড়েছে, শতবর্ষ পুরনো এই মসজিদটি দেখে চলে গেলাম তারা মসজিদ দেখতে মাএ ৫ মিনিটের হাটাপথ।তারা মসজিদের কথা আমরা কম বেশি সবাই জানি, সাদা মার্বেলের গম্বুজের ওপর নীলরঙের তারায় খচিত এ মসজিদ কত সুন্দর তা সরাসরি না দেখলে বোঝা মুশকিল।

Image may contain: sky and outdoor

তারা মসজিদ শেষ করে বাজে মাএ ১১ টা কিন্তু পাশেই হাজি নান্নার বিরিয়ানি আবার খিদেও তেমন লাগিনি তাই বিরিয়ানি অফ রেখে চলে গেলাম হোসেনি দালান বা ইমাম বাড়া দেখতে, এটি মোগল শাসনামলে ১৭শ শতকে নির্মিত একটি শিয়া উপাসনালয় ও কবরস্থান।পুরা পুরাণ ঢাকায় হোসেইনি দালান আমার সবচেয়ে ভাল লেগেছে, লেকের পাশে প্রধান দালান এবং দালানের ভিতরে ইসলামী ক্যালিগ্রাফি ছিলো অসাধারণ।

Image may contain: sky, cloud and outdoor

প্রচুর হাটার কারণে একটু ক্লান্ত লাগছিল তাই এখানের শান্ত পরিবেশে একটু বিশ্রাম নিয়ে নিলাম তারপর রিক্সা নিয়ে চলে গেলাম খান মোহম্মদমেধা মসজিদে, একনজরে মসজিদটি ঘুরে চলে গেলাম প্লানের শেষ ডেসটিনেশন লালবাগ কেল্লাই,লালবাগের কেল্লা (কিলা আওরঙ্গবাদ) ঢাকার দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে বুড়িগঙ্গা নদীর তীরে অবস্থিত একটি অসমাপ্ত মুঘল দুর্গ।টিকিট কেটে ঢুকে পড়লাম ভিতরে, কেল্লার ভিতরে ঢুকতেই তিনটি ভবন বা স্থাপনার চোখে পড়বে (মসজিদ, পরী বিবির সমাধি ও দেওয়ান-ই-আম) সাথে দুটি বিশাল তোরণ ও আংশিক ধ্বংসপ্রাপ্ত মজবুত দুর্গ প্রাচীর।ডান দিকদিয়ে ঢুকে আশেপাশে দেখে চলে গেলাম তোরণের উপরে, এর আশেপাশে সবাই জোড়ায় জোড়ায় বসে ভালো একটা পরিবেশ করে ফেলেছে।উপর থেকে একনজরে লালকেল্লা দেখে বাম দিক দিয়ে জাদুঘর ঘুরে বের হয়ে এলাম লালবাগ কেল্লা থেকে, তখন প্রায় ১ টা বাজে একটু খুদাও লাগছে তাই আর সময় নষ্টনা করে রিক্সা নিয়ে চলে গেলাম হাজীনান্নার বিরিয়ানি খেতে, যাওয়ার সাথে সাথেই সামনে কাচ্চি হাজির, সাথে বোরহানি নিয়ে খাওয়া শুরু করলাম।

মাংসের টেস্ট ও সাইজ ভাল লাগলোও, রাইসটা ভাললাগিনি আর বোরহানি ছিল এভারেজ। তারপর সদরঘাটে যেয়ে বুড়িগঙ্গার জীবনরেখা দেখতে দেখতে পরবর্তী অভিযানের জন্য অপেক্ষা করছিলাম।।।

Image may contain: outdoor

কিছু নির্দেশনা-

  • হাতে বিকেল পযন্ত সময় থাকায় একটু তাড়াহুড়ো ছিলো, যদিও সব প্লেসগুলো মনমত ঘুড়েছি
  • পুরো প্লানটাই গুলল ম্যাপ দেখে সাজানো, আর লোকেশন ডিরেকশন ও ভালো ছিলো, কারোর কাছে জানার দরকার হয়নি
  • শুধু আহসান মঞ্জিল ও লালবাগ কেল্লাতে টিকিট লাগছে, ২০ টাকা করে
  • জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে হোসেন দালান সম্পূর্ণ পায়ে হেটে গেছি, কোন সমস্যা হয়নি
  • ঢাকেশ্বরী মন্দীর ও একই রুটে ছিলো কিন্ত সময়ের কারণে বাদ দিছি
  • সাপ্তাহিক ছুটির দিন গুলো একটু নজরে রাখবেন
  • ধর্মিয় স্থানের আদবকায়দা গুলো মেনে চলবেন

Image may contain: sky and outdoor

দৃষ্টি আকর্ষণ : যে কোন পর্যটন স্থান আমাদের সম্পদ, আমাদের দেশের সম্পদ। এইসব স্থানের প্রাকৃতিক কিংবা সৌন্দর্য্যের জন্যে ক্ষতিকর এমন কিছু করা থেকে বিরত থাকুন, অন্যদেরকেও উৎসাহিত করুন। দেশ আমাদের, দেশের সকল কিছুর প্রতি যত্নবান হবার দায়িত্বও আমাদের।

সতর্কতাঃ হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ভাড়া ও অন্যান্য খরচ সময়ের সাথে পরিবর্তন হয় তাই ভ্রমণ গাইডে প্রকাশিত তথ্য বর্তমানের সাথে মিল না থাকতে পারে। তাই অনুগ্রহ করে আপনি কোথায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে বর্তমান ভাড়া ও খরচের তথ্য জেনে পরিকল্পনা করবেন। এছাড়া আপনাদের সুবিধার জন্যে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হোটেল, রিসোর্ট, যানবাহন ও নানা রকম যোগাযোগ এর মোবাইল নাম্বার দেওয়া হয়। এসব নাম্বারে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের আগে যাচাই করার অনুরোধ করা হলো। কোন আর্থিক ক্ষতি বা কোন প্রকার সমস্যা হলে তার জন্যে ভ্রমণ গাইড দায়ী থাকবে না।

73026431_499309080801214_5121852103681114112_n
74615407_604237516988756_3060769724364226560_n

Tourplacebd.com